একাদশীই ব্রত পালনীয় ,শ্রীশ্রী হরিভক্তিবিলাস গ্রন্থেশ্রীল সনাতন গোস্বামী

একাদশীই ব্রত পালনীয়

একাদশীই ব্রত পালন উভয় পক্ষের একাদশীই পালনীয় শ্রীশ্রী হরিভক্তিবিলাস গ্রন্থে (১২.৩৭) শ্রীল সনাতন গোস্বামী লিখেছেন, বিষ্ণুরহস্য, জন্দপুরাণ, কূর্মপুরাণ ও নারদপুরাণ অনুসারে যথা শুক্লা তথা কৃষ্ণা বিশেষো নাপ্তি কণ্ঠন ॥ “যেমন শুক্লা একাদশী ব্রতের বিধি ও মহিমা রয়েছে, তেমনি । কৃষ্ণা একাদশী ব্রতের বিধি ও মহিমা রয়েছে। এতে কোনো পার্থক্য নেই।” একাদশীব্রতং নিত্যং তৎ কুৰ্যাৎ পক্ষয়োওঁয়োঃ।

(গরুড়পুরাণ, ১২৩/১১) “একাদশী ব্রত নিত্য, তাই কখনো একাদশী লঙ্ঘন করবে না। শুরু ও কৃষ্ণ এ উভয় পক্ষেই একাদশী ব্রত করবে।” যথা শুক্লা তথা কৃষ্ণা দ্বয়োশ্চ সদৃশং ফলম্ । ধেনুঃ শ্বেতা যথা কৃষ্ণা উভয়োঃ সদৃশং পয়ঃ ॥ (গর্গ সংহিতা, মাধুর্যখণ্ড ৮/৪৩; পদ্মপুরাণ, উত্তরখণ্ড ৬০/৫২-৫৩) একাদশী ব্রতকাল নির্ণয়, শাস্ত্রীয় ও বিজ্ঞানসম্মত বিশ্লেষণ “গাভী শ্বেতই হোক বা কৃষ্ণই হোক, দুগ্ধদান ঋণে যেমন উভয়ই তুল্য, তেমনি শুরু কৃষ্ণ উভয় পক্ষীয় একাদশীই তুল্য ফলপ্রদ।

একাদশী ব্রত নিত্য, তাই কখনো একাদশী লঙ্ঘন করবে না

” একাদশ্যাং ন তৃতীত পক্ষয়োরুভয়োরপি ॥৪৭ ব্রহ্মা সুরাপস ছোটী গুরুতরগা। একাদশ্যাষ্ঠ যো ভুতেক পয়োকভয়োরপি ॥ ৪৮ বরাহপুরাণে (২১১.৪৭-৪৮) “উভয় পক্ষেই একাদশীতে ভোজন করা কর্তব্য নয়। কৃষ্ণ উভয়পক্ষীয় একাদশীতে যে ভোজন করে, সে ব্রহ্মহত্যাকারী, সূর্যপায়ী, তখনা এবং গুরুতগামী পদ্মপুরাণে (উত্তরখণ্ডে ৩৮১০৮-১১০) ভগবান শ্রীকৃষ্ণ মহারাজ যুধিষ্ঠিরকে বলেন উভয়োঃ পক্ষয়েঃ পার্থ তুল্যা একাদশী শুভা। ন শুক্লা নৈব কৃষ্ণা চ বিভেদং নৈর কারয়েৎ

॥ বিভেদো নৈব কর্তব্যঃ সমস্তব্রতকারিজিঃ দিবা বা যদি বা রাত্রৌ শৃণোতি ভক্তিতত্পরা । তিথিরেকা ভবেৎ সৰ্ব্বা পক্ষয়োরুভয়োরপি। “হে পার্থ, শুভা একাদশী উভয় পক্ষেই সমান। একাদশী শুক্লা বা কৃষ্ণা এরূপ বিভেদ করবে না। সমস্ত ব্রতকারীর পক্ষেই এরূপ ভেদজ্ঞান বর্জনীয়। উভয় পক্ষে একই ● একাদশী তিথি জানবে।” শুক্লে বা যদি বা কৃষ্ণে যদা চৈকাদশী ভবেৎ। ন ত্যাজ্যা জগতীপান মোক্ষসৌখ্যবিবন্ধনী ॥ (পদ্মপুরাণ, উত্তরখণ্ড ৬৩.৩) হে রাজন, শুক্লাই কি, কৃষ্ণাই কিন্তু যখন যে একাদশী উপস্থিত হবে, তা কিছুতেই পরিত্যাগ করবে না। কারণ তা মোক্ষ ও সৌখ্য প্রদান করবে।

অন্নদাএকাদশী 2021. অন্নদাএকাদশী মাহাত্ম্য

বৈদিক শাস্ত্র অনুসারে।

দ্বাদশী প্রসঙ্গেও বরাহপুরাণে (২১১.৪১-৪২) বলা হয়েছে যথা শুক্লা তথা কৃষ্ণা উপোয্যা সা প্রযত্নতা। শুক্লা ভক্তিপ্রদা নিতাৎ কৃষ্ণা মুক্তি প্ৰচ্ছতি ॥ তন্মাৎ সৰ্ব্বপ্রযত্নেন কর্তব্যা দ্বাদশী সদা। যদীচ্ছৈ বৈষ্ণবং লোকং গন্তু বৈ ভূতধারিণী ॥ “শুক্লা দ্বাদশী ও কৃষ্ণা দ্বাদশী উভয়ই তুল্যফলদায়িনী যত্নের সহিত তাতে উপবাস করবে। শুক্লা দ্বাদশী সতত ভক্তিদায়িনী, কৃষ্ণা দ্বাদশী মুক্তিবিধায়িনী। অতএব, হে ভূতধারিণী, যদি কেউ বিষ্ণুলোক গমনে বাসনা করে, তবে তার পক্ষে সর্বপ্রযত্নে সতত দ্বাদশীব্রত করা কর্তব্য।

” একাদশী ব্রতকাল নির্ণয়, শাস্ত্রীয় ও বিজ্ঞানসম্মত বিশ্লেষণ ১৭ তবে, শাস্ত্রবাক্যের মর্মার্থ না বুঝে কেউ কেউ দু’একটি শাস্ত্র উদ্ধৃতি দিয়ে বলে থাকেন। যে, “শয়ন ও উত্থান একাদশী ব্যতীত অন্য কৃষ্ণা একাদশীতে গৃহীর উপবাস কর্তনা নয়, গৃহীর কেবল শুক্লা একাদশীতেই উপবাস কর্তব্য।” কিন্তু বৈদিক শাস্ত্র অনুসারে। আমরা দেখলাম যে, শুরু ও কৃষ্ণ উভয় পক্ষের

একাদশীই সকলের জন্য পালনীয়।

তাহলে এর সমাধান কী? আচার্য প্রবর শ্রীল সনাতন গোস্বামী এর সমাধান দিয়েছেন হরিভক্তিবিলাস গ্রন্থে (হ.ডবি ১২.৪০৩)। তিনি লিখেছেন এতৎ সৰ্ব্বহ তথানাচ্চ বচনং বৈষ্ণবেতরান। গৃহস্থান পুত্রবিস্তাদি তৎপরান প্রতি মন্যতাম্ ॥ অর্থাৎ একাদশীই পালনীয় , “এই সকল বাক্য এবং এইরূপ অন্য বাক্যসকলও বৈষ্ণব ভিন্ন অন্য গৃহস্থ ও পুত্রবিস্তাদি পরায়ণ (তথা সকামকর্মী) ব্যক্তিদের জন্য মনে করুন।

* সকামকর্মী থাকা কারোরই উচিত নয়, প্রত্যেকের উচিত বৈষ্ণব স্তরে উন্নীত হওয়া, কেননা, বৈষ্ণব সর্বশ্রেষ্ঠ। তাই পদ্মপুরাণে (ক্রিয়াযোগসার, ২২.৫৮-৫৯) বলা হয়েছে তন্মিন মাসে দ্বিজশ্রেষ্ঠ পক্ষয়োঃ শুরুকৃষ্ণয়োঃ। ভবেদেকাদশীযুগ্মং গ্রাহাং তৎ সকলৈজনৈা ॥ যথা শুক্লা তথা কৃষ্ণা বিস্ফোঃ প্রিয়তমা সদা। একাদশীব্রতং কাৰ্য্যং পক্ষয়োঃ শুকুকৃষ্ণয়ো ॥ “শুরু কৃষ্ণপক্ষে দুটি একাদশী হয়, এই উভয় একাদশীই ব্রতার্থ সকলেরই গ্রহণীয়

একাদশী শ্রীহরির প্রিয়তমা

একাদশীই পালনীয় শুক্লা একদশী যেমন, কৃষ্ণা একাদশীও তেমনি শ্রীহরির প্রিয়তমা। তাই উভয় পক্ষেই একাদশী ব্রত করতে হয়।” *টীকা: অধুনা গৃহস্থানাং কৃষ্ণকাদশী ত্যাগবচনানি শিখতি যথেত্যাদিনা। শুরা গৃহস্থের কর্তব্যেতি তথা “কৃষ্ণারার জ্যেষ্ঠ পুরো বিনশ্যতি ইত্যাদিনা কামিনা পুত্রবতো গৃহস্থসা কৃষ্ণেকাদত্যপবাসো নিষিদ্ধা। তরচ চাতুর্মাস্যর কৃষ্ণেকাদশাস্তেনাপি কর্তব্যাঃ ইত্যাহ-শানীতি, শানীবোধন্যোরেকাদশ্যোমধ্যে। “ফামের সদ্য গৃহী ইভানেন চ নৈৰোপৰাসো নিষিখাতে, ব্রতত্স্য নিতাৎ, কিন্তু ত পূজাপিনিমামবিশেষ এব নিষিখাতে। তজ্ঞ শ্রীকৃষ্ণদেবাচাৰ্যৰোপদেবাচাৰ্যাদিভিরের সবিষ্কা ব্যাখ্যাতমন্ত্রী তাতত্ত্বমাত্র বৈশাবকৃতালিখমেহনপেক্ষাত্মাচ্চ, বিশ্ববিস্তারণেন ৪হ ভবি. ১২.৩৯৯-৪০২৪ ১৬

Leave a Reply

Your email address will not be published.